STATUS UPDATE: কিটো ডায়েট ছাড়া কোনো কথা হবে না 😊

(VIDEO) ধূসর চাঁদ – দুই

স্বয়ংক্রিয় একটি মেশিন খাবারের ট্রলি ঠেলে নিয়ে আসছে। কচর মচর আওয়াজ পাচ্ছে জসিম রুমে বসে। দেখতে রোবটের মত হলেও এর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্ত্বা একেবারে লো-লেভেলের। খাবার আসার পর আয়েশ করে খেয়ে নিল জসিম। বিছানায় শুয়ে দক্ষিনের দেয়ালের এক অংশ খুলে দিল। চাঁদের আলো আসছে, ধূসর চাঁদ।

বেড সাইডে থাকা অ্যাগ্রেসিভ অ্যালার্ম ক্লকের স্বয়ংক্রিয় থাপ্পরে ঘুম ভাঙল জসিমের। রাতে জিনিসটা বন্ধ করতে মনে ছিল না। সব হোটেলে পূর্বনির্ধারিতভাবে এই অ্যালার্ম সেট করা থাকে সকাল ৭ টায়। ঢুলু ঢুলু চোখে বাথবক্সে ঢুকল জসিম। শোশো করে শাওয়ার মেশিনে গোসল সেরে নিল। ফ্রি ব্রেকফার্স্ট করতে হলে ৫ তলায় যেতে হবে। মিটিংএর জন্য একবারে রেডি হয়ে জসিম লিফটে উঠল। ৫ তলায় নেমে খাবার নিয়ে একটা কাউন্টার টেবিলে বসল। সামনে থাকা কফি মেশিন থেকে কফি নিয়ে তাতে চুমুক দিচ্ছে জসিম এমন সময় তার আঙুলের রিং ভাইব্রেট করে উঠল। হাত কানের কাছে ধরা মাত্র কল রিসিভ হয়ে গেল। ঢাকা থেকে তার কলিগ ইয়াসিন ফোন করেছে।

ইয়াসিন: জসিম ভাই গুড মর্নিং

জসিম: মর্নিং

ইয়াসিন: জার্নি কেমন ছিল ভাই?

জসিম: ছিল

ইয়াসিন: ভাই সব ঠিক ঠাক আছে তো?

জসিম: হ্যাঁ

ইয়াসিন: জসিম ভাই আপনার প্রেজেন্টেশনের জন্য যে ভিডিওটা দরকার ছিল সেটা রেডি।

জসিম: সিঙ্ক করুন

ইয়াসিন: দেখে নিন

জসিম তার ডান চোখের পাশের একটি ছোট বাটনে চাপ দেয়। চোখের সামনে ভেসে উঠে ভিডিওটি। ঠিক যেমনটা চেয়েছিল তেমনটাই হয়েছে। ধন্যবাদ দিয়ে ফোন রেখে দেয় জসিম।

বাইরে প্রচন্ড গরম এখন। কাজ না থাকলে কেউই বের হয়না আজকাল। জসিমের মত হাইব্রিড দিয়ে কাজ চালিয়ে নেয়। জসিমের মনে পড়তে থাকে গতকাল রাতের কথা, রাতের সেই চাঁদের কথা। যেন চিরকাল ধরে চেনা প্রিয় ধূসর চাঁদ।

SUBSCRIBE

অন্যান্য পোস্ট